ইসলাম অনুযায়ী কি খেলে বীর্য উৎপাদন হয় ? (বীর্যের মান উন্নত করে যে খাবারগুলো)

কি খেলে বীর্য উৎপাদন হয়

এটা পুরুষদের কাছে এক গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন।আজ আমরা ইসলাম ধর্মে হালাল এবং খেতে উদ্ধুদ্ধ করা হয়েছে, যা মহানবী সঃ এর বিভিন্ন হাদিসে বার বার উঠে এসেছে এমন কিছু খাবারের নাম দেখবো এবং জানবো।
পুরুষের একটি প্রধান ও খুবই বিপদ জনক সমস্যা হল তার বীর্যের গুণগত মান । কারন বীর্যের গুনগত মান ঠিক না থাকলে হাজার প্রচেষ্টার পরও সুস্থ সবল সন্তান পাওয়া সম্ভব নয়।

আর বর্তমান এই ভেজালের যুগে আমরা ভেজাল খেতে খেতে অবস্থা তো ভয়াবহ। আগেকার যুগে যেখানে বন্ধ্যাত্বতার হার মাত্র ২-৩% সেখানে বর্তমান যুগে বন্ধ্যাত্বতার হার প্রায় ১০% এর উপরে।অদুর ভবিষ্যতে এও হার কোথায় পৌছাবে তা অকল্পনীয়।। পুরুষের বীর্যের মান কিভাবে বাড়ানো যায় এবং কি খেলে বীর্য উৎপাদন হয় এটা লিখে অনেক পুরুষই গুগলে এ সার্চ করে থাকেন। কিন্তু সমস্যার বিষয় হচ্ছে বাংলা ভাষায় বীর্যের মান উন্নত করে এই বিষয় লেখার পরিমান খুবই কম।আর যেগুলো আছে সেগুলোর অনেকই ভুল এবং জাস্ট অনুমান।

কি খেলে বীর্য উৎপাদন হয়

কি খেলে বীর্য উৎপাদন হয় কি খেলে বীর্য উৎপাদন হয় কি খেলে বীর্য উৎপাদন হয়


পুরুষ মানুষ এর বন্ধ্যাত্বকরণ এর জন্য সবচেয়ে বেশি দায়ী হচ্ছে পাতলা বীর্য অর্থাৎ যেই বীর্যে শুক্রাণুর পরিমান খুবই কম।পরিসংখ্যান এ দেখা যায় ১০০ জনের প্রায় ২৫-৩০ জন জীবনের কোন না কোন সময় এই সমস্যায় ভুগে থাকেন।ভেজাল খাবার , অতিরিক্ত মদ্যপান বা ধুমপান, এমনকি অতিরিক্ত টেনশন ও আপনার শুক্রানুর হার হ্রাসের জন্য দায়ী হতে পারে।কোমল পানীয় যেমন কোকাকোলা এবং পেপসি জাতীয় পানীয় এর প্রতি অতিরিক্ত আসক্তিও বীর্যের হার নষ্ট হওয়ার অন্যতম একটি প্রধান কারণ ।বীর্য ঘন বা গাড় করতে এবং শুক্রাণুর অনুপার বৃদ্ধি করতে প্রয়োজন সঠিক খাদ্যাভ্যাস এবং পরিমিত জীবন যাপন। নিচে কিছু খাবারের তালিকা তুলে ধরা হলো যেগুলো খেলে বীর্য উৎপাদন হয়


মধু
মহান আল্লাহ তালা মধুকে একটি বিস্ময়কর বস্তু হিসেবে সৃষ্টি করেছেন। যার তুলনা অতুলনীয়। এন্টিএক্সিডেন্ট নামে এক প্রকার পদার্থ আছে যা শুক্রাণুকে সুস্থ সবল রাখে।এই এন্টি এক্সিডেন্টএর অভাবেই শুক্রানু মারা যায় এবং সংখ্যা হ্রাস পায়। মধুতে রয়েছে প্রচুর পরিমান এন্টি অক্সিডেন্ট যার কারনে মধু শুক্রাণুর সুস্থতা বজায় রাখে, বীর্য কে গাড় করে

 

কি খেলে বীর্য উৎপাদন হয় কি খেলে বীর্য উৎপাদন হয় কি খেলে বীর্য উৎপাদন হয়



কালজিরা
ইসলাম ধর্ম অনুযায়ী মধুর পরেই ভুমিকা দেওয়া হয়েছে কালজিরাকে। এমনকি কালজিরাকে সর্বরোগের ওষুধ বলা হয়ে থাকে। গবেষণায় দেখা যায় কালোজিরা বা নাইজেলা সিডে ১৫ প্রকার অ্যামোইনো এসিড রয়েছে। তাছাড়াও এতে প্রায় ২১ শতাংশ প্রোটিন রয়েছে যা বীর্যকে গাড় করতে ভুমিকা পালন করে । নিয়মিত কালোজিরা সেবনে শুক্রাণুর সংখ্যা বৃদ্ধি পায় এবং গুনাগুণ অনেক বৃদ্ধি পায়।


কি খেলে বীর্য উৎপাদন হয় কি খেলে বীর্য উৎপাদন হয় কি খেলে বীর্য উৎপাদন হয়


কলা
কলা বীর্য উৎপাদন বা ঘন করতে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে ।দেখা যায় কলাতে বোমেনাইল নামের বিশেষ এক ধরণের এনজাইম আছে যা যৌন উদ্দিপক হরমোন গুলোকে নিয়ন্ত্রণ করে। এছাড়াও কলায় ভিটামিন বি১, ভিটামিন এ ও ভিটামিন সি আছে যেগুলো নতুন করে বীর্য উৎপাদন করতে এবং গাড় করতে সাহায্য করে
 

কি খেলে বীর্য উৎপাদন হয় কি খেলে বীর্য উৎপাদন হয় কি খেলে বীর্য উৎপাদন হয়


গরুর মাংশ
জ্বি ঠিকই দেখেছেন।গরুর মাংস প্রত্যক্ষ ভাবে বীর্যের মান নিয়ন্ত্রণে ভুমিকা পালন করে।যৌন ক্ষমতা বা উদ্দীপনা কমানোর জন্য দ্বায়ী এস্ট্রোজেন নামে একটি হরমোন।গরুর মাংসে প্রচুর জিংক থাকায় টেস্টোস্টেরন কে রুপান্তরিত হয়ে এস্ট্রজেন হতে বাধা দেয়।এভাবে যৌন ক্ষমতা হ্রাস পাওয়া থেকে রক্ষা করে ।তাছাড়া বীর্য মুলত প্রোটিন দ্বারা গঠিত আর গরুর মাংসে প্রচুর প্রোটিন থাকায় গরুর মাংস বীর্য উৎপাদন এ সাহায্য করে।

ডার্ক চকোলেট
যারা চকোলেট পছন্দ করেন বা ভালোবাসেন তাদের জন্য এটা সুখবরই বটে।কারন ডার্ক চকোলেট শুক্রানুর পরিমাণ বাড়ায় এবং বীর্যকে গাড় করে। ডার্ক চকোলেটে অতিরিক্ত অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকায় তা যৌন উদ্দিপনা বৃদ্ধি করে এবং শুক্রানুর সংখ্যা বৃদ্ধি করে । এছাড়াও ডার্ক চকোলেটে আছে L-Arginine HCL ও অ্যামিনো এসিড। এইসকল উপাদানগুলোও শুক্রাণুর সংখ্যা এবং পরিমাণ বৃদ্ধি করে।

রসুন
যাদের বীর্যে শুক্রাণুর অনুপাত জনিত সমস্যা আছে তাদের জন্য রসুন একটি অসাধারণ খাবার ।পুর্বেই এন্টিঅক্সিডেন্টের ভুমিকার কথা বলা হয়েছে আর রসুনে রয়েছে সেলেনিয়াম নামক একটি অ্যান্টি অক্সিডেন্ট যা শুক্রাণুর সংখ্যা বৃদ্ধি করে এবং সক্রিয়তা বাড়ায়। রসুনে অতিরিক্ত পরিমাণ আলিকিন রয়েছে যা পুরুষাঙ্গ তে রক্তচলাচল বৃদ্ধি করে উদ্দিপনা সৃষ্টি করে এবং স্পার্মের পরিমাণ বাড়ায়।

কমলা লেবু
কমলা লেবু বা লেবুতে রয়েছে প্রচুর পরিমান ভিটামিন সি যেটা পুরুষের বীর্যের মান উন্নত করে। ফলে বীর্য গাড় হয়ে এবং সন্তান উৎপাদন ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়
উপরোক্ত সবগুলো খাবারই ইসলাম ধর্মে হালাল এবং মহানবী হজরত মুহাম্মদ সঃ এর কাছে খুবই প্রিয় ছিল

খাবারের পাশাপাশি আরো কিছু বিষয়  আছে যেগুলো মেনে চলার মাধ্যমে উপকৃত হতে পারেন :-
১।কখনোই অতিরিক্ত ভারী বা টাইট প্যান্ট পরিধান করবেন না।যথাসম্ভব বাসায় থাকা অবস্থায় লুঙ্গী, ট্রাউজার বা পাতলা জিন্স পরার চেষ্টা করবেন ।
২। মানসিক সকল দুশ্চিন্তা থেকে নিজেকে বিরত রাখার চেষ্টা করবেন ।
৩। সিগারেট বা ধুমপান ও মদ্যপান শুক্রাণুর সংখ্যা কমিয়ে দেয়।এজন্য এগুলো থেকে বিরত থাকা উত্তম।
৪| হস্তমৈথুনের চেয়ে সেক্স বেশি করুন।আর সম্ভব হকে হস্তমৈথুন একেবারে বাদ দিয়ে দিন ।

৫। ফুটপাত অথবা হারবালের চটকদার বিজ্ঞাপন থেকে ১০০ হাত দূরে থাকুন।
৬। দিনে ২ লিটারের বেশি পানি পান করার চেষ্টা করুন। 





কি খেলে বীর্য উৎপাদন হয় কি খেলে বীর্য উৎপাদন হয় কি খেলে বীর্য উৎপাদন হয়

Post a Comment

0 Comments